1. admin@alordiganto.com : admin :
মাছ চাষে রাষ্ট্রীয় পদক পেলেন গৌরীপুরের যতীন্দ্র - আলোর দিগন্ত
বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০৯:৫২ পূর্বাহ্ন
বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০৯:৫২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
গৌরীপুরে গার্মেন্টস্ কর্মীকে গণধর্ষণের ঘটনায় ফাঁসাতে গিয়ে দেবর-ভাবী আটক! প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনীতে পশু খাদ্য উৎপাদনে প্রথম হয়েছে ‘সাফিনা সাইলেজ’৷। গৌরীপুর রেলওয়ে জংশনে পুলিশ কর্তৃক নারী যাত্রী লাঞ্চিত ॥ উল্টো নারী যাত্রীর স্বামী ও দু’ভাই গ্রেফতার। হতদরিদ্র পরিবার ও অসহায় মাদের মাঝে গৌরিপুর স্বজন সমাবেশের ঈদ সামগ্রী বিতরণ। প্রয়াত সাংবাদিকদের স্মরণে গৌরীপুরে বিএমএসএফের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল গৌরীপুরে বিএনসিসি ক্লাবের মিলনমেলা ও ইফতার। ইউপি চেয়ারম্যান রুবেল সাময়িক বরখাস্ত। //আলোর দিগন্ত // গৌরীপুরে পরাজিত চেয়ারম্যানের টর্চারসেল থেকে পুনরায় যুবক উদ্ধার ॥ গ্রেফতার-১ বিএমএসএফের উদ্যোগে গৌরীপুরে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত গৌরীপুরে স্বজন সমাবেশের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন।

মাছ চাষে রাষ্ট্রীয় পদক পেলেন গৌরীপুরের যতীন্দ্র

আলোর দিগন্ত ডেস্ক :
  • আপডেট সময় : সোমবার, ২৮ আগস্ট, ২০২৩
  • ১৮১ বার পঠিত

Tags: , ,

গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

অভাবের তাড়নায় পড়াশোনা হয়নি। জীবিকার তাগিদে ছোটবেলায় জেলে পেশা বেছে নেন। খাল-বিল থেকে যেমন মাছ শিকার করেছেন। তেমনি টাকা রোজগার করতে শ্রমিকের কাজ করেছেন অন্যের মৎস্য খামারে।

মাছ চাষের স্বপ্নটা দেখাটা তখন থেকেই শুরু যতীন্দ্রের।

হাড়ভাঙা খাটুনির শ্রমে মাটির ব্যাংকে জমানো পাঁচশ টাকায় ১৯৯৫ সালে মাছ চাষের জন্য একটি পুকুর ভাড়া নেন যতীন্দ্র বর্মণ।

এরপর আর পেছনে তাকানে হয়নি। মাছ চাষের আয়ে ২০০৫ সালে প্রতিষ্ঠা করেন বর্মণ মৎস্য প্রজনন কেন্দ্র।

চলতি বছর জাতীয় মৎস্য সপ্তাহে রেণু পোনা উৎপাদনে বিশেষ অবদানের জন্য ২০২৩ জাতীয় মৎস্য পদক পান যতীন্দ্র চন্দ্র বর্মণ।

গত ২৫ জুলাই মঙ্গলবার রাজধানী ঢাকার ওসমানি স্মৃতি মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে অতিথি থেকে জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরিন শারমীন চৌধুরী জাতীয় মৎস্য পদক (ব্রোঞ্জ) তুলে দেন যতীন্দ্র বর্মণের হাতে।

যতীন্দ্র চন্দ্র বর্মণের বাড়ি ময়মনসিংহের গৌরীপুরের রামগোপালপুর ইউনিয়নের পশ্চিমপাড়া গ্রামে।

গৌরীপুর-রামগোপালপুর আঞ্চলিক সড়কের পাশে বাহাদুর গ্রামে রয়েছে যতীন্দ্রের প্রতিষ্ঠিত হ্যাচারি।

বৃহস্পতিবার খোঁজ নিয়ে দেখা যায় হ্যাচারির পুকুরে মাছের খাবার ছিটাচ্ছেন যতীন্দ্র। কয়েকজন কর্মচারী মিলে করেছেন পুকুর ও হ্যাচারির চৌবাচ্চা পরিচর্যার কাজ।

একটি পুকুর ভাড়া নিয়ে মাছ চাষ শুরু করা যতীন্দ্রের হ্যাচারিতে এখন ২৫টি পুকুর রয়েছে। এখানে কর্মসংস্থান হয়েছে প্রায় অর্ধ শতাধিক মানুষের।

যতীন্দ্রের হ্যাচারিতে রুই, কাতল, মৃগেল, সরপুঁটি, গ্রাসকার্প, সিলভার কার্প, কার্ফু, কালিবাউশ সহ দেশি-বিদেশী বিভিন্ন মাছের পোনা ও রেণু উৎপাদন করা হয়।

স্থানীয়দের খামারিদের পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন প্রান্তের ৭০ জন খামারি এই নিয়মিত এই হ্যাচারি থেকে নিয়মিত মাছের পোনা ও রেণু সংগ্রহ করেন।

তাই বছর শেষে ভাল লাভের মুখ দেখেন তিনি। করেছেন জমি ও বাড়ি।

যতীন্দ্রের বয়স এখন বাষট্টি। মাছ চাষের পাশাপাশি সঙ্গীত ও যাত্রাশিল্পী হিসাবে সুনাম কুড়িয়েছেন।

মাছ চাষে বেকার যুবকদের উদ্বুব্ধ করতে গান ও নাটিকা লিখেছেন।

স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন ও মৎস্য বিভাগ এগুলো বিভিন্ন সেমিনারে প্রচার করেন।

১৯৭৫ সালে তার গান শোনে মুগ্ধ হয়ে তৎকালীন জমিদার রুহিনী কান্ত লাহিড়ি চৌধুরী তাকে পৌর শহরের বাগানবাড়ি একখণ্ড জমি উপহার দেন। সেই জমিতেই বাড়ি তুলে পরিবার নিয়ে বসবাস করছেন এখন এই মাছচাষি।

যতীন্দ্র চন্দ্র বর্মণ বলেন, ছোটবেলায় খাল-বিলে মাছ শিকার করার পাশাপাশি হ্যাচারিতে কাজ করতাম। সেখান থেকেই মাছ চাষের স্বপ্ন দেখা। শুরুটা কঠিন হলেও পরিশ্রম ও আত্মবিশ্বাস কাজে লাগিয়ে সফল হয়েছি। পেয়েছি জাতীয় পুরস্কার। মাছ ও গান আমার নেশা। এগুলো নিয়েই বাকি জীবনটা কাটাতে চাই।

উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ হারুন অর রশিদ বলেন, যতীন্দ্র চন্দ্র বর্মণ একজন সফল উদ্যোক্তা। তিনি মৎস্য অফিস থেকে মাছ চাষের সর্বশেষ যে প্রযুক্তি ও প্রশিক্ষণ নিয়ে মাছ চাষ ও রেণু উৎপাদন করতেন। আদর্শ এই মাছ চাষি জাতীয় মৎস্য পদক সম্মানা পেয়েছেন। ভবিষ্যতে তিনি আরো ভালো কিছু করে সুনাম বয়ে আনবেন এটাই প্রত্যাশা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

নামাজের সূময়সুচি :

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৪৬
  • ১২:০২
  • ৪:৩৮
  • ৬:৫১
  • ৮:১৭
  • ৫:১০
© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২২ আলোর দিগন্ত
Theme Customized By Shakil IT Park